খেলাধুলা

ইনজামামের চোখে শচীন টেন্ডুলকারের সেরা ইনিংস

অনলাইন ডেস্কঃ ১০০ আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরির মালিক শচীন টেন্ডুলকার। টেস্ট-ওয়ানডেতে সর্বাধিক রানের মালিক। পাকিস্তানের বিপক্ষেই মাস্টার ব্লাস্টার ৭টি সেঞ্চুরি করেছেন। তবে এগুলোর মধ্যে কোনোটিই পাকিস্তান কিংবদন্তি ইনজামাম-উল-হকের চোখে শচীনের সেরা ইনিংস নয়। বরং ইনজি মনে করেন যে, ২০০৩ বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলা শচীনের ইনিংসটিই তার দেখা সেরা।

ইউটিউব শো ‘ডিআরএস উইথ অ্যাশ’ অনুষ্ঠানে সেঞ্চুরিয়নে শচীনের সেই ইনিংসটি নিয়ে ইনজামামকে প্রশ্ন করেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। তিনি বলেন, ‘আমি শচীন পাজিকেও এই প্রশ্নটা করেছিলাম। আমি আপনাকেও একই কথা জিজ্ঞাসা করছি। ২০০৩ বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ ছিল। পাকিস্তান প্রথমে ব্যাট করে বড় রানের ইনিংস গড়ে তোলে। আনোয়ার সেঞ্চুরি করেন। তবে তারপর শেবাগ আর শচীন পাজি দারুণ খেলে এবং ভারত ম্যাচটা জিতে যায়। ম্যাচের মাঝে আপনার কি মনে হয়েছিল যে, ভারতকে হারানোর পক্ষে যথেষ্ট ছিল পাকিস্তানের ইনিংস? নাকি কম মনে হয়েছিল?’

শচীনের ৭৫ বলে ৯৮ রানের ইনিংসটিই পাকিস্তানের থেকে ম্যাচ ছিনিয়ে নিয়ে যায়। ইনজামাম বলেন, ‘দক্ষিণ আফ্রিকার সেঞ্চুরিয়নে ম্যাচ। পরিবেশ পেসারদের অনুকূল ছিল। আমাদের দলে ওয়াসিম আক্রম, ওয়াকার ইউনিস, শোয়েব আখতারের মতো বোলার ছিল। সুতরাং আমরা ভেবেছিলাম যে, জয়ের জন্য আমাদের হাতে যথেষ্ট রান রয়েছে। আমি বহুবার শচীনকে ব্যাট করতে দেখেছি। তবে সেই ম্যাচে শচীন যেভাবে ব্যাট করে, আগে কখনও সেরকম দেখিনি। সেখানকার পরিবেশে আমাদের পেসারদের সে যেভাবে সামলেছিল, এককথায় অসাধারণ!’

উল্লেখ্য, সেঞ্চুরিয়নে পাকিস্তান প্রথমে ব্যাট করে ৭ উইকেটের বিনিময়ে ২৭৩ রান তোলে। সাঈদ আনোয়ার ১০১ রান করেন। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ভারত ৪৫.৪ ওভারে ৪ উইকেটের বিনিময়ে ২৭৬ রান তুলে ম্যাচ জিতে জায়। শচীন ৭৫ বলে ১২টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ৯৮ রান করে ম্যাচের সেরা হন। ইনজি আরও বলেন, ‘আমি মনে করি যে, ওটাই শচীনের সেরা ইনিংস ছিল। সে সব চাপ ভেঙে চুরমার করে দিয়েছিল। আমাদের সেরা পেসারদের বিপক্ষে সেদিন সে টপ কোয়ালিটির ইনিংস খেলেছিল।

আরো দেখুন

সম্পরকিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close